___দুবাই ভিসা ২০২৩: সর্বশেষ খবর ও বিস্তারিত গাইড___

Home - Other - ___দুবাই ভিসা ২০২৩: সর্বশেষ খবর ও বিস্তারিত গাইড___

দুবাই, যা আরব আমিরাতের একটি উজ্জ্বল রত্ন হিসেবে পরিচিত, তার আধুনিক স্থাপত্য, বিলাসবহুল জীবনযাত্রা এবং জীবন্ত সাংস্কৃতিক পরিবেশের মাধ্যমে বিশ্বের লাখ লাখ পর্যটক এবং প্রবাসীদের আকর্ষণ করে চলেছে। ২০২৩ সালে দুবাই ভিসা প্রক্রিয়া ও নীতিমালায় কিছু গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন এসেছে, যা ভিসা প্রার্থীদের জন্য অনেক সুবিধা এবং চ্যালেঞ্জ বয়ে আনতে পারে। এই ব্লগে আমরা দুবাই ভিসা ২০২৩ আজকের খবর ও নির্দেশিকা তুলে ধরব।

দুবাই ভিসা ২০২৩: সর্বশেষ খবর ও বিস্তারিত গাইড

দুবাই, যা আরব আমিরাতের একটি উজ্জ্বল রত্ন হিসেবে পরিচিত, তার আধুনিক স্থাপত্য, বিলাসবহুল জীবনযাত্রা এবং জীবন্ত সাংস্কৃতিক পরিবেশের মাধ্যমে বিশ্বের লাখ লাখ পর্যটক এবং প্রবাসীদের আকর্ষণ করে চলেছে। ২০২৩ সালে দুবাই ভিসা প্রক্রিয়া ও নীতিমালায় কিছু গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন এসেছে, যা ভিসা প্রার্থীদের জন্য অনেক সুবিধা এবং চ্যালেঞ্জ বয়ে আনতে পারে। এই ব্লগে আমরা দুবাই ভিসা ২০২৩ আজকের খবর ও নির্দেশিকা তুলে ধরব।

দুবাই ভিসা ২০২৩ নবায়ন ও পরিবর্তন
দুবাই, যুক্তআরব আমিরাত (UAE) একটি জনপ্রিয় গন্তব্য স্থান যেখানে বহু বিদেশী নাগরিক বসবাস করে থাকেন। দুবাই-তে অবস্থানকারী বিদেশীদের জন্য ভিসা নবায়ন ও পরিবর্তন সংক্রান্ত বিষয়গুলি গুরুত্বপূর্ণ। চলতি বছর, 2023 সালে, দুবাই ভিসা নবায়ন ও পরিবর্তনের কিছু গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন এসেছে। নিম্নে এ বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য দেওয়া হল:

১. ভিসা নবায়নের সময়সীমা বৃদ্ধি: দুবাই ভিসা ২০২৩ আজকের খবর অনুযায়ী দুবাই সরকার 2023 সালে ভিসা নবায়নের সময়সীমা বৃদ্ধি করেছে। এখন বিভিন্ন ভিসা ক্যাটাগরিতে নবায়নের সময়সীমা নিম্নরূপ:

  • লং-টার্ম রেসিডেন্সী ভিসা: ২ বছর
  • ওয়ার্ক পারমিট ভিসা: ২ বছর
  • ভিজিটর ভিসা: ৬ মাস

এর আগে এই সময়সীমাগুলো ছিল যথাক্রমে ১ বছর, ১ বছর এবং ৩ মাস। এই অতিরিক্ত সময় দিয়ে দুবাই সরকার বিদেশী অবাসীদের জন্য সুবিধা বৃদ্ধি করেছে।

২. ভিসা ফি বৃদ্ধি: 2023 সালে দুবাইয়ের ভিসা ফি কিছুটা বৃদ্ধি পেয়েছে। নতুন ফি নিম্নরূপ:

  • লং-টার্ম রেসিডেন্সী ভিসা নবায়ন: ৩,০০০ দিরহাম (প্রায় ৮৫০ ডলার)
  • ওয়ার্ক পারমিট ভিসা নবায়ন: ২,০০০ দিরহাম (প্রায় ৫৫০ ডলার)
  • ভিজিটর ভিসা নবায়ন: ৬০০ দিরহাম (প্রায় ১৬৫ ডলার)

এর আগে এই ফিগুলো যথাক্রমে ২,৫০০ দিরহাম, ১,২০০ দিরহাম এবং ৩০০ দিরহাম ছিল। ফি বৃদ্ধির এই পরিবর্তনগুলো অল্প বড় হলেও মোট খরচ বৃদ্ধি পেয়েছে।

৩. ভিসা পরিবর্তন: দুবাই সরকার 2023 সালে কিছু ভিসার নাম ও ক্যাটাগরি পরিবর্তন করেছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তনগুলো হল:

  • গৃহপরিচর্যা ভিসা: নতুন নাম – “সার্ভিস ইনডাস্ট্রি ওয়ার্কার ভিসা”
  • ভিজিটর ভিসার অতিরিক্ত কোটা: নতুন নাম – “মাল্টিপল এন্ট্রি ভিজিটর ভিসা”

এই পরিবর্তনগুলো দুবাই-তে বসবাসকারী বিদেশীদের জন্য বিশেষ প্রয়োজনীয়তা অনুযায়ী নতুন সুবিধা প্রদান করার লক্ষ্যে করা হয়েছে।

৪. ক্রিয়েটিভ ভিসা: দুবাই ভিসা ২০২৩ আজকের খবর অনুযায়ী দুবাই সরকার 2023 সালে একটি নতুন ভিসা ক্যাটাগরি চালু করেছে, যার নাম “ক্রিয়েটিভ ভিসা”। এই ভিসাটি প্রযুক্তি, শিল্প, সাংস্কৃতিক বিষয়ে নিপুণ ও দক্ষ বিদেশীদের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে। এই ভিসার মেয়াদ ৫ বছর এবং সর্বোচ্চ ২ বার নবায়ন করা যাবে।

৫. ক্যারিয়ার ভিসা: দুবাইয়ের আরেকটি নতুন ভিসা ক্যাটাগরি হল “ক্যারিয়ার ভিসা”। এই ভিসাটি সুযোগ্য ব্যক্তিদের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে যারা দুবাই-তে উচ্চপদস্থ কর্মসংস্থান পেতে চান। এর মেয়াদ ৫ বছর এবং ২ বার নবায়ন করা যাবে।

এছাড়াও, দুবাই সরকার 2023 সালে “স্টার্টআপ ভিসা” নামে একটি নতুন ভিসা ক্যাটাগরিও চালু করেছে যা উদ্যোক্তাদের জন্য উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।

আবেদন প্রক্রিয়া
দুবাই, যুক্তআরব আমিরাত (UAE) একটি জনপ্রিয় আন্তর্জাতিক গন্তব্য স্থান যেখানে প্রচুর বিদেশী নাগরিক বসবাস করে থাকেন। দুবাই-তে ভিসা আবেদন প্রক্রিয়া এবং প্রয়োজনীয় নথিপত্র সংক্রান্ত বিষয়গুলি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

ভিসা আবেদনের প্রক্রিয়া:
দুবাই-তে ভিসা আবেদন করতে নিম্নোক্ত পদক্ষেপগুলি অনুসরণ করতে হবে:

১. ভিসা ধরণ নির্ধারণ: আগে থেকেই আপনার উদ্দেশ্য নির্ধারণ করুন যে, আপনি কোন ভিসার জন্য আবেদন করবেন। দুবাই-তে প্রধান ভিসা ধরণগুলো হল – ব্যবসা ভিসা, পরিবার ভিসা, শিক্ষা ভিসা, ভিজিটর ভিসা, ওয়ার্ক ভিসা ইত্যাদি।

২. দলিলপত্র সংগ্রহ: প্রত্যেক ভিসা ক্যাটাগরির জন্য প্রয়োজনীয় নথিপত্র আলাদা হয়। সাধারণত জন্ম সনদ, পাসপোর্ট, ছবি, আয়ের প্রমাণ, বিশেষ স্পন্সরের নথি ইত্যাদি দাখিল করতে হয়।

৩. অনলাইনে আবেদন করা: আপনি আপনার আবেদনপত্র ও নথিপত্র দুবাই সরকারের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট এর মাধ্যমে অনলাইনে দাখিল করতে পারেন। এছাড়াও দুবাইয়ের অনুমোদিত ভিসা এজেন্সীর সাহায্য নিতে পারেন।

৪. ভিসা ফি পরিশোধ: আবেদন করার পর আপনাকে ভিসা ফি পরিশোধ করতে হবে। ফি পরিমাণ ভিসা ক্যাটাগরি অনুযায়ী পরিবর্তনশীল। এটি অনলাইনে বা ব্যাংক মাধ্যমে পরিশোধ করা যায়।

৫. ভিসা অনুমোদন: আপনার আবেদন প্রক্রিয়াধীন থাকার সময়, দুবাই সরকার আপনার আবেদনটি যাচাই-বাছাই করবে। অনুমোদনের পর আপনি আপনার ভিসা সনদ পাবেন।

প্রয়োজনীয় নথিপত্রসমূহ:
দুবাই ভিসা আবেদনের জন্য প্রয়োজনীয় নথিপত্রগুলি নিচে তুলে ধরা হল:

১. পাসপোর্ট: বৈধ পাসপোর্ট, যার মেয়াদ আবেদন করার তারিখ থেকে কমপক্ষে ৬ মাস বাকি থাকতে হবে।

২. ছবি: প্রশাসনিক ভাবে অনুমোদিত ছবি, ২x২ ইঞ্চির, রঙিন।

৩. আয়ের প্রমাণ: বর্তমান আয়ের প্রমাণপত্র, ব্যাংক স্টেটমেন্ট, বেতন স্লিপ ইত্যাদি।

৪. স্পন্সরের নথি: যদি আপনি স্পন্সরের আওতায় ভিসা আবেদন করেন, তাহলে তাদের পাসপোর্ট কপি, আইডি কার্ড, আয়ের প্রমাণ ইত্যাদি দাখিল করতে হবে।

৫. শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদপত্র: যদি আপনি শিক্ষা ভিসার জন্য আবেদন করেন, তাহলে আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদপত্র প্রয়োজন।

৬. বৈবাহিক সংযোগের প্রমাণ: যদি আপনি পরিবার ভিসার জন্য আবেদন করেন, তাহলে বিবাহ সনদপত্র, ফটো ইত্যাদি দাখিল করতে হবে।

৭. অন্যান্য নথি: ভিসা ক্যাটাগরির উপর নির্ভর করে, আপনার কর্মসংস্থান, ব্যবসা, ভ্রমণ উদ্দেশ্য ইত্যাদির প্রমাণপত্র দাখিল করতে হতে পারে।

দুবাই ভিসা আবেদনের এই প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন করতে অনেকগুলি দলিলপত্র জমা দিতে হয়। যথাসময়ে এই নথিগুলি জমা দেওয়া এবং ভিসা ফি পরিশোধ করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তাই এ বিষয়ে সতর্ক ও সজ্জিত থাকা প্রয়োজন।

সাধারণ প্রশ্নাবলী

১. দুবাই ভিসা কতদিনের জন্য বৈধ?
উত্তর: ভিসার ধরণ অনুযায়ী মেয়াদ পরিবর্তিত হয়, যেমন – লং-টার্ম রেসিডেন্সী ভিসা ২ বছর, ওয়ার্ক পারমিট ভিসা ২ বছর, ভিজিটর ভিসা ৬ মাস।

২. দুবাই ভিসার জন্য কী প্রয়োজনীয় নথিপত্র?
উত্তর: পাসপোর্ট, ছবি, আয়ের প্রমাণ, স্পন্সরের নথি, শিক্ষাগত যোগ্যতা ইত্যাদি।

৩. ভিসা ফি কত?
উত্তর: ভিসা ক্যাটাগরি অনুযায়ী ফি পরিবর্তিত হয়। লং-টার্ম রেসিডেন্সী ভিসা নবায়ন ৩,০০০ দিরহাম, ওয়ার্ক পারমিট ভিসা নবায়ন ২,০০০ দিরহাম, ভিজিটর ভিসা নবায়ন ৬০০ দিরহাম।

৪. ভিসার আবেদন কীভাবে করবো?
উত্তর: দুবাই সরকারের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট (www.gdrfa.ae) বা অনুমোদিত ভিসা এজেন্সীর মাধ্যমে অনলাইন আবেদন করতে হবে।

৫. ভিসার আবেদনে কতটা সময় লাগে?
উত্তর: সাধারণত ১-৪ সপ্তাহ সময় লাগে। তবে ভিসার ধরণ ও আবেদনের তাড়াতাড়ি মাত্রার উপর নির্ভর করে।

৬. দুবাই ভিসা কোথায় পাওয়া যায়?
উত্তর: দুবাই সরকারের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট বা অনুমোদিত ভিসা এজেন্সীর মাধ্যমে ভিসা পাওয়া যায়।

৭. ভিসা নবায়ন কীভাবে করবো?
উত্তর: দুবাই সরকারের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে লগইন করে অনলাইনে ভিসা নবায়নের জন্য আবেদন করতে হবে।

৮. দুবাই ভিসা বাতিল করা যায়?
উত্তর: হ্যাঁ, কিছু নির্দিষ্ট কারণে ভিসা বাতিল করা যায়, যেমন – থাকার ঠিকানা পরিবর্তন।

৯. স্পন্সর ছাড়াও ভিসা আবেদন করা যায়?
উত্তর: হ্যাঁ, কিছু ক্ষেত্রে স্পন্সর ছাড়াও ভিসা আবেদন করা যায়, যেমন – ব্যবসা ভিসা, ক্যারিয়ার ভিসা।

১০. দুবাই ভিসায় কত জন পরিবারসহ থাকতে পারবেন?
উত্তর: পরিবার ভিসায় স্বামী/স্ত্রী ও অনবয়স্ক সন্তানরা থাকতে পারেন।

সমগ্রত দুবাই ভিসা ২০২৩ আজকের খবর এর মধ্যে আমরা দেখতে পাই যে ভিসা নবায়ন ও পরিবর্তনসমূহ বিদেশী নাগরিকদের জন্য বেশ উপকারি হয়েছে। সময়সীমা বৃদ্ধি, নতুন ভিসা ধরণ চালুকরণ ও কিছু ফি পরিবর্তন মূলত এই উদ্দেশ্যে করা হয়েছে যাতে দুবাই বিদেশী অবাসীদের জন্য আরও আকর্ষণীয় ও সুবিধাজনক গন্তব্য হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হতে পারে।

দুবাই, যুক্তআরব আমিরাত (UAE) একটি জনপ্রিয় গন্তব্য স্থান যেখানে বহু বিদেশী নাগরিক বসবাস করে থাকেন। দুবাই-তে অবস্থানকারী বিদেশীদের জন্য ভিসা নবায়ন ও পরিবর্তন সংক্রান্ত বিষয়গুলি গুরুত্বপূর্ণ। চলতি বছর, 2023 সালে, দুবাই ভিসা নবায়ন ও পরিবর্তনের কিছু গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন এসেছে। নিম্নে এ বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য দেওয়া হল:

১. ভিসা নবায়নের সময়সীমা বৃদ্ধি: দুবাই ভিসা ২০২৩ আজকের খবর অনুযায়ী দুবাই সরকার 2023 সালে ভিসা নবায়নের সময়সীমা বৃদ্ধি করেছে। এখন বিভিন্ন ভিসা ক্যাটাগরিতে নবায়নের সময়সীমা নিম্নরূপ:

– লং-টার্ম রেসিডেন্সী ভিসা: ২ বছর

– ওয়ার্ক পারমিট ভিসা: ২ বছর

– ভিজিটর ভিসা: ৬ মাস

এর আগে এই সময়সীমাগুলো ছিল যথাক্রমে ১ বছর, ১ বছর এবং ৩ মাস। এই অতিরিক্ত সময় দিয়ে দুবাই সরকার বিদেশী অবাসীদের জন্য সুবিধা বৃদ্ধি করেছে।

২. ভিসা ফি বৃদ্ধি: 2023 সালে দুবাইয়ের ভিসা ফি কিছুটা বৃদ্ধি পেয়েছে। নতুন ফি নিম্নরূপ:

– লং-টার্ম রেসিডেন্সী ভিসা নবায়ন: ৩,০০০ দিরহাম (প্রায় ৮৫০ ডলার)

– ওয়ার্ক পারমিট ভিসা নবায়ন: ২,০০০ দিরহাম (প্রায় ৫৫০ ডলার) 

– ভিজিটর ভিসা নবায়ন: ৬০০ দিরহাম (প্রায় ১৬৫ ডলার)

এর আগে এই ফিগুলো যথাক্রমে ২,৫০০ দিরহাম, ১,২০০ দিরহাম এবং ৩০০ দিরহাম ছিল। ফি বৃদ্ধির এই পরিবর্তনগুলো অল্প বড় হলেও মোট খরচ বৃদ্ধি পেয়েছে।

৩. ভিসা পরিবর্তন: দুবাই সরকার 2023 সালে কিছু ভিসার নাম ও ক্যাটাগরি পরিবর্তন করেছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তনগুলো হল:

– গৃহপরিচর্যা ভিসা: নতুন নাম – “সার্ভিস ইনডাস্ট্রি ওয়ার্কার ভিসা”

– ভিজিটর ভিসার অতিরিক্ত কোটা: নতুন নাম – “মাল্টিপল এন্ট্রি ভিজিটর ভিসা”

এই পরিবর্তনগুলো দুবাই-তে বসবাসকারী বিদেশীদের জন্য বিশেষ প্রয়োজনীয়তা অনুযায়ী নতুন সুবিধা প্রদান করার লক্ষ্যে করা হয়েছে।

৪. ক্রিয়েটিভ ভিসা: দুবাই ভিসা ২০২৩ আজকের খবর অনুযায়ী দুবাই সরকার 2023 সালে একটি নতুন ভিসা ক্যাটাগরি চালু করেছে, যার নাম “ক্রিয়েটিভ ভিসা”। এই ভিসাটি প্রযুক্তি, শিল্প, সাংস্কৃতিক বিষয়ে নিপুণ ও দক্ষ বিদেশীদের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে। এই ভিসার মেয়াদ ৫ বছর এবং সর্বোচ্চ ২ বার নবায়ন করা যাবে।

৫. ক্যারিয়ার ভিসা: দুবাইয়ের আরেকটি নতুন ভিসা ক্যাটাগরি হল “ক্যারিয়ার ভিসা”। এই ভিসাটি সুযোগ্য ব্যক্তিদের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে যারা দুবাই-তে উচ্চপদস্থ কর্মসংস্থান পেতে চান। এর মেয়াদ ৫ বছর এবং ২ বার নবায়ন করা যাবে।

এছাড়াও, দুবাই সরকার 2023 সালে “স্টার্টআপ ভিসা” নামে একটি নতুন ভিসা ক্যাটাগরিও চালু করেছে যা উদ্যোক্তাদের জন্য উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।

আবেদন প্রক্রিয়া 

দুবাই, যুক্তআরব আমিরাত (UAE) একটি জনপ্রিয় আন্তর্জাতিক গন্তব্য স্থান যেখানে প্রচুর বিদেশী নাগরিক বসবাস করে থাকেন। দুবাই-তে ভিসা আবেদন প্রক্রিয়া এবং প্রয়োজনীয় নথিপত্র সংক্রান্ত বিষয়গুলি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

ভিসা আবেদনের প্রক্রিয়া:

দুবাই-তে ভিসা আবেদন করতে নিম্নোক্ত পদক্ষেপগুলি অনুসরণ করতে হবে:

১. ভিসা ধরণ নির্ধারণ: আগে থেকেই আপনার উদ্দেশ্য নির্ধারণ করুন যে, আপনি কোন ভিসার জন্য আবেদন করবেন। দুবাই-তে প্রধান ভিসা ধরণগুলো হল – ব্যবসা ভিসা, পরিবার ভিসা, শিক্ষা ভিসা, ভিজিটর ভিসা, ওয়ার্ক ভিসা ইত্যাদি।

২. দলিলপত্র সংগ্রহ: প্রত্যেক ভিসা ক্যাটাগরির জন্য প্রয়োজনীয় নথিপত্র আলাদা হয়। সাধারণত জন্ম সনদ, পাসপোর্ট, ছবি, আয়ের প্রমাণ, বিশেষ স্পন্সরের নথি ইত্যাদি দাখিল করতে হয়।

৩. অনলাইনে আবেদন করা: আপনি আপনার আবেদনপত্র ও নথিপত্র দুবাই সরকারের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট এর মাধ্যমে অনলাইনে দাখিল করতে পারেন। এছাড়াও দুবাইয়ের অনুমোদিত ভিসা এজেন্সীর সাহায্য নিতে পারেন।

৪. ভিসা ফি পরিশোধ: আবেদন করার পর আপনাকে ভিসা ফি পরিশোধ করতে হবে। ফি পরিমাণ ভিসা ক্যাটাগরি অনুযায়ী পরিবর্তনশীল। এটি অনলাইনে বা ব্যাংক মাধ্যমে পরিশোধ করা যায়।

৫. ভিসা অনুমোদন: আপনার আবেদন প্রক্রিয়াধীন থাকার সময়, দুবাই সরকার আপনার আবেদনটি যাচাই-বাছাই করবে। অনুমোদনের পর আপনি আপনার ভিসা সনদ পাবেন।

প্রয়োজনীয় নথিপত্রসমূহ:

দুবাই ভিসা আবেদনের জন্য প্রয়োজনীয় নথিপত্রগুলি নিচে তুলে ধরা হল:

১. পাসপোর্ট: বৈধ পাসপোর্ট, যার মেয়াদ আবেদন করার তারিখ থেকে কমপক্ষে ৬ মাস বাকি থাকতে হবে।

২. ছবি: প্রশাসনিক ভাবে অনুমোদিত ছবি, ২x২ ইঞ্চির, রঙিন।

৩. আয়ের প্রমাণ: বর্তমান আয়ের প্রমাণপত্র, ব্যাংক স্টেটমেন্ট, বেতন স্লিপ ইত্যাদি।

৪. স্পন্সরের নথি: যদি আপনি স্পন্সরের আওতায় ভিসা আবেদন করেন, তাহলে তাদের পাসপোর্ট কপি, আইডি কার্ড, আয়ের প্রমাণ ইত্যাদি দাখিল করতে হবে।

৫. শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদপত্র: যদি আপনি শিক্ষা ভিসার জন্য আবেদন করেন, তাহলে আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদপত্র প্রয়োজন।

৬. বৈবাহিক সংযোগের প্রমাণ: যদি আপনি পরিবার ভিসার জন্য আবেদন করেন, তাহলে বিবাহ সনদপত্র, ফটো ইত্যাদি দাখিল করতে হবে।

৭. অন্যান্য নথি: ভিসা ক্যাটাগরির উপর নির্ভর করে, আপনার কর্মসংস্থান, ব্যবসা, ভ্রমণ উদ্দেশ্য ইত্যাদির প্রমাণপত্র দাখিল করতে হতে পারে।

দুবাই ভিসা আবেদনের এই প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন করতে অনেকগুলি দলিলপত্র জমা দিতে হয়। যথাসময়ে এই নথিগুলি জমা দেওয়া এবং ভিসা ফি পরিশোধ করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তাই এ বিষয়ে সতর্ক ও সজ্জিত থাকা প্রয়োজন।

সাধারণ প্রশ্নাবলী 

১. দুবাই ভিসা কতদিনের জন্য বৈধ?

উত্তর: ভিসার ধরণ অনুযায়ী মেয়াদ পরিবর্তিত হয়, যেমন – লং-টার্ম রেসিডেন্সী ভিসা ২ বছর, ওয়ার্ক পারমিট ভিসা ২ বছর, ভিজিটর ভিসা ৬ মাস।

২. দুবাই ভিসার জন্য কী প্রয়োজনীয় নথিপত্র?

উত্তর: পাসপোর্ট, ছবি, আয়ের প্রমাণ, স্পন্সরের নথি, শিক্ষাগত যোগ্যতা ইত্যাদি।

৩. ভিসা ফি কত?

উত্তর: ভিসা ক্যাটাগরি অনুযায়ী ফি পরিবর্তিত হয়। লং-টার্ম রেসিডেন্সী ভিসা নবায়ন ৩,০০০ দিরহাম, ওয়ার্ক পারমিট ভিসা নবায়ন ২,০০০ দিরহাম, ভিজিটর ভিসা নবায়ন ৬০০ দিরহাম।

৪. ভিসার আবেদন কীভাবে করবো?

উত্তর: দুবাই সরকারের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট (www.gdrfa.ae) বা অনুমোদিত ভিসা এজেন্সীর মাধ্যমে অনলাইন আবেদন করতে হবে।

৫. ভিসার আবেদনে কতটা সময় লাগে?

উত্তর: সাধারণত ১-৪ সপ্তাহ সময় লাগে। তবে ভিসার ধরণ ও আবেদনের তাড়াতাড়ি মাত্রার উপর নির্ভর করে।

৬. দুবাই ভিসা কোথায় পাওয়া যায়?

উত্তর: দুবাই সরকারের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট বা অনুমোদিত ভিসা এজেন্সীর মাধ্যমে ভিসা পাওয়া যায়।

৭. ভিসা নবায়ন কীভাবে করবো?

উত্তর: দুবাই সরকারের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে লগইন করে অনলাইনে ভিসা নবায়নের জন্য আবেদন করতে হবে।

৮. দুবাই ভিসা বাতিল করা যায়?

উত্তর: হ্যাঁ, কিছু নির্দিষ্ট কারণে ভিসা বাতিল করা যায়, যেমন – থাকার ঠিকানা পরিবর্তন।

৯. স্পন্সর ছাড়াও ভিসা আবেদন করা যায়?

উত্তর: হ্যাঁ, কিছু ক্ষেত্রে স্পন্সর ছাড়াও ভিসা আবেদন করা যায়, যেমন – ব্যবসা ভিসা, ক্যারিয়ার ভিসা।

১০. দুবাই ভিসায় কত জন পরিবারসহ থাকতে পারবেন?

উত্তর: পরিবার ভিসায় স্বামী/স্ত্রী ও অনবয়স্ক সন্তানরা থাকতে পারেন।

সমগ্রত দুবাই ভিসা ২০২৩ আজকের খবর এর মধ্যে আমরা দেখতে পাই যে ভিসা নবায়ন ও পরিবর্তনসমূহ বিদেশী নাগরিকদের জন্য বেশ উপকারি হয়েছে। সময়সীমা বৃদ্ধি, নতুন ভিসা ধরণ চালুকরণ ও কিছু ফি পরিবর্তন মূলত এই উদ্দেশ্যে করা হয়েছে যাতে দুবাই বিদেশী অবাসীদের জন্য আরও আকর্ষণীয় ও সুবিধাজনক গন্তব্য হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হতে পারে।

ShivamJha

Table of Contents

Recent Articles